প্রকাশকের পত্র

লেখক:

ভাবতে ভালো লাগছে যে, কালি ও কলম তার অভিযাত্রায় দশ বছর অতিক্রম করল। এটা নিশ্চয় একটা বড় মাইলফলক পেরোনো। কালি ও কলম এই সময়ের মধ্যে একটা বিশিষ্টতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশে এবং বাংলাদেশের বাইরে পত্রিকাটি যে-সমাদর লাভ করেছে, তা আমাদের পক্ষে শ্লাঘার কথা। তবে আমরা চাই, কালি ও কলম আরো বেশি মানুষের কাছে পৌঁছোক। বাংলাভাষার বিশিষ্ট সাহিত্যিকেরা কালি ও কলমে প্রথম থেকে লিখে এসেছেন। সেজন্য তাঁদের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। তেমনি অনেক তরুণ ও প্রতিশ্রুতিশীল লেখকেরাও পত্রিকার পাতায় স্থান করে নিয়েছেন। তা আমাদের অশেষ তৃপ্তি দিয়েছে। তরুণদের জন্য কালি ও কলম কেবল জায়গা তৈরি করে দিয়েছে, তা নয়। এইচএসবিসি-র সঙ্গে মিলে তরুণ লেখক পুরস্কার প্রবর্তন করে তাদের সাহিত্য সাধনায় উৎসাহ দিয়েছে। বেঙ্গল পাবলিকেশন্স প্রতিষ্ঠা করে প্রকাশনা ক্ষেত্রে যে-জায়গা আমরা করে নিয়েছি, তাও প্রবীণ ও তরুণ লেখকদের জন্য উন্মুক্ত।

কালি ও কলম ওয়েবসাইটেও উৎসাহী পাঠক-পাঠিকা নিয়মিত পত্রিকা পাঠ করে নিতে পারছেন। এতে করে পৃথিবীর প্রত্যন্ত অঞ্চলেও কালি ও কলম পৌঁছে যাচ্ছে।

আজ কালি ও কলমের সকল পাঠক, লেখক, চিত্রশিল্পী ও বিজ্ঞাপনদাতাকে আমি ধন্যবাদ দিই। সেই সঙ্গে কৃতজ্ঞতা জানাই এর সম্পাদনা ও প্রকাশনার সঙ্গে যুক্ত সবাইকে।

সকলের শুভেচ্ছা নিয়েই আমরা সামনের পথে পাড়ি দিতে চাই।

 

আবুল খায়ের

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply