বক্ষ্যমাণ অংশটুকু

লেখক:

হারিসুল হক

বক্ষ্যমাণ অংশটুকু হাওয়া থেকে পাওয়া

হঠাৎ বৃষ্টিতে বোধ যে-প্রকারে হয় সচেতন

কিছুটা সেভাবে

কিছুটা স্বভাববশে একাকী বারান্দায়

অস্পন্দ দোতারা কোলে বসি তন্ময়

অতিশয় সতর্কতায় পাতি উদ্গ্রীব কান

অই বুঝি বেজে ওঠে গেরুয়ার প্রাণছোঁয়া তান

 

বক্ষ্যমাণ অংশটুকু বন থেকে পাওয়া

মৌয়ালিরা বন থেকে মৌচাক কাটে যে-কৌশলে

দার্শনিক প্রজাপতি ফুল থেকে মধু টানে যে-প্রকারে

অনেকটা সে-উপায়ে আমি

অরণ্যসিন্দুক খুলে সাগ্রহে তুলে আনি সূর্যের ছায়ারশ্মিকণা

 

বক্ষ্যমাণ অংশটুকু চন্দ্রালোকে পাওয়া

কিছু কিছু অর্থহীন গাগনিক সংকেত

আমাকে উদ্বেল করে অর্ধরাতে

কিছু কিছু নাক্ষত্রিক কলরব আমাকে অশান্ত করে

অদ্ভুত অনুভবে

কিছু কিছু জন্মনুলো সাধ পাপোশে গড়ায় ঠুনকো অজুহাতে

 

বিটপী কীভাবে জন্মায় আমি তা জানি না

বৃক্ষটি কোন গোত্রের তা কি পাখি জানে

কীভাবে মৃত্তিকা-গর্ভে ছড়ায় শেকড়

সেটুকু কি কেঁচো বোঝে

অরণ্যে বৃক্ষ বাড়ে বৃক্ষ বাড়ে মেঘসীমায়

কবিকে জাগিয়ে রেখে মৌচুষকি বেঘোর ঘুমায়

 

বক্ষ্যমাণ অংশটুকু জলা থেকে পাওয়া

কষ্টের বিসর্গ থেকে জন্ম নেয় বোবা সমুদ্দুর

ফেনা ও প্রবালে ভাসে বোধের দুকূল

গতায়ু আকাঙ্ক্ষার চরে অট্টহাসে ধ্রুপদী শামুক

 

বক্ষ্যমাণ অংশটুকু মাটি খুঁড়ে পাওয়া

শেয়ার করুন

Leave a Reply