১.

আঠারোটা বছর কম নয়

অনন্ত শাবকও সারস বনে যায় এভাবেই

আপনার সুপটু মসিতে একদিন বেড়ে উঠেছিল, শমীবৃক্ষ

কালের ধ্বনিতে বেজে ওঠে সেই কালি ও কলম

প্রসন্ন আকাশে উজাগর নক্ষত্রের মতো কাটালেন

সত্তরটা বছর …

অভাবনীয় পারদর্শিতায় ভাসালেন দু-পার বাংলা

ভাষার চৌহদ্দি ছাড়িয়ে আজ আপনি পুবালি দিগন্ত

আপনার সুপটু লেখনীতে একাকার বাংলার উপকূল

নির্মাণে গড়ে ওঠে, নতুন এক শব্দসভ্যতা কালি ও কলম

সোমত্ত আয়োজনে আহ্বান সাজাই – পুনর্জন্মের

২.

পৃথিবীর যাবতীয় কল্যাণ শেখাতে এঁকেছিলেন, রপ্ত ভাষা

তুতিয়া রঙের পৃষ্ঠা ছিঁড়ে এভাবেই উড়ে যায় –

                                  কোন কনিষ্ঠ পাখি

শান্ত ঘুমিয়ে থাকা পল্লির পদ্ম দিঘিতে

সাঁতার কাটা আপনি সেই দুরন্ত কিশোর …

জলডিঙির আয়োজন ছেড়ে একা পাড়ি দিয়েছেন –

অনিরুদ্ধ দুই দশক জুড়ে

ওস্তাদের কারিগরি বিদ্যা মেখে উড়ে গেছে –

এক ঝাঁক মেঘমালা পাখি

৩.

সম্ভাব্য গন্তব্যের দিকে একদিন তো চলে যেতেই হয় –

সোমত্ত আয়োজনে সাজানো পৃথিবীতে রয়ে যায়

                                  নির্মিত সেই আলোকবর্ষ

সুদূরে পড়ে রই – গহ্বর

আলোর সোপান সাজিয়ে আপনি সেই নক্ষত্র

জেগে রইলেন –  কালি ও কলমের প্রদীপ জ্বেলে

আপনার শিরস্ত্রাণে আজ নক্ষত্রফুল আরো একবার নেমে আসুন, পুনর্জন্মের অঙ্গীকারে

Leave a Reply