ইস্ট সী, পোল্যান্ড, ২০১৪

লেখক:

অলোকরঞ্জন দাশগুপ্ত

 

সিন্ধুমরালের ডাক

নবজাত শিশুর কান্নার সঙ্গে মিশে গিয়ে

তৈরি করে নতুন সিম্ফনি

 

সমুদ্রকিনারে আমি লেখার কেবিন থেকে দেখি

স্নানার্থীরা জলের ভিতরে

অকাতরে মজে গিয়ে পুনর্বার সৈকতে তাদের

নিজ-নিজ অবসরচর্চার ঝুপড়িতে ঢুকে যায়,

ইসাবেল আলেন্দের বই পড়ে, পড়তে-পড়তেও

করুণামিশ্রিত ব্যঙ্গে আমাকে অবলোকন করে।

 

এমন সময় বেলাভূমির বিস্তীর্ণ বালুকায়

ভূমিষ্ঠ নবজাতক কঁকিয়ে উঠেছে,

সিন্ধুমরালেরা অমনি পঞ্চম-নিখাদ কাকলিতে

মা আর শিশুকে ঘিরে কর্কশ মাধুর্যে গান করে;

আমিও লেখার খাতা জড়ো করে এই মর্মে একটি কবিতা

লিখতে গেছি, তৎক্ষণাৎ স্নানার্থীরা আমার লেখার

পরিপার্শ্বে গোল হয়ে তীব্র কৌতূহলে ফেটে পড়ে –

লেখার সময় আমি একাকী বিজন থাকতে চাই

সে-কথা না বলে শুধু করজোড়ে ওদের জানাই :

‘আজ সংগৃহীত হলো চিত্রকল্প, কাল প্রত্যূষে

সমস্তটা লিপিবদ্ধ হবে’খন অক্ষরে-অক্ষরে’

 

বলতে-বলতে লজ্জা পাই আমারই নিরুদ্ধ কণ্ঠস্বরে,

আমাকে আজকের মতো নিষ্কৃতি দিয়েই দিনমণি

অস্ত যায়, আর তার গনগনে মোমের রক্ত লেখার খাতায় ঝরে পড়ে…