(কবি মাহমুদ আল জামান স্মরণে)

হেমন্তের বুকজুড়ে খেলে যায় বেদনার গোপন শিশির।

তাই জ্বালাময়ী দুঃখগুলো একদিন পাখা মেলে

উড়ে গিয়ে বসেছিল রোদ্দুরের দহন জ্বালায়। সেই থেকে আমার চোখের 

প্রান্তরে উন্মুখর রূপ-রস-ছন্দের ঢেউ জেগে ওঠে –

জেগে ওঠে কাকলিতে পুষ্পের সমারোহে দিগন্তের মনখোলা মাঠ।

সবদিকে সবখানে ভরেছিল প্রজাপতির প্রাণখোলা হাসি।

অথচ প্রকৃতির ঢেউখেলা গোপন আঁধারঘরে যন্ত্রণার বেদনারা

এইসব আদরের আঁচলতলে কখন যে দিয়ে গেল দুঃসহ মলিন জ্বালা!

আমার হৃদয়টা তাই ঠাকুরঘরের সলতের মতো জ্বলে নিবু নিবু।

সেই থেকে আমি আর স্বপ্ন দেখি না – দেখি ফুল নয়, পাখি নয়,

নদী নয় – জীবনের ভেতরে আর এক জীবনের অনন্ত সময় – জ্বলজ্বলে ফুটে আছে এক মাঠ বেদনার বিষভরা হেমন্ত আকাশ।

Leave a Reply