হে বন্ধু আমার

অলোকরঞ্জন দাসগুপ্ত
শেষবার তোমার কোলে মাথা রেখে কেঁদেছিলাম মুজিব যখন
মৃত্যুদণ্ড এবং প্রবাসে।
এরপর ফিরলেন তিনি স্বদেশে, সংক্ষিপ্তভাবে উদ্যাপিত হয়ে
নিহত হলেন যেই, কান্নার বদলে ইতিহাসে
পর্যালোচনায় খুব ডুবে গেছি, এবং দেখেছি
অন্যান্য অনেক চোরা খুন;
তথাপি ভেঙে পড়িনি, সৃজিত চৌধুরী আর জাকারিয়াদের
বাঙালির আত্মপরিচয়
বিষয়ক সেমিনারে এমনকি কূটতার্কিকের
ভূমিকা নিয়েছি কিংবা নর্মদা নদীর
সংরক্ষণে যে-নারীটি ব্যস্ত আছে তার
আর্তির ভিতরে কেন আরো যুক্তি নেই ইত্যাকার
শলাপরামর্শের ভিতরে
পংকজ ফারুক আর আলমের সঙ্গে বেফজুল
প্রবৃত্ত হয়েছি।
তার অর্থ নয় এখন আমার
চিদাকাশে অশ্রু নেই, আমি শুধু বলতে চেয়েছি;
এক-এক শতকে শুধু একটি বিরাট কান্না সংঘটিত হয় একবার!

Leave a Reply

%d bloggers like this: