কালি ও কলম তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার ২০১৮

সাহিত্য, শিল্প ও সংস্কৃতি বিষয়ক মাসিক পত্রিকা কালি ও কলম বাংলাদেশের নবীন কবি ও লেখকদের সাহিত্যচর্চা এবং সাধনাকে গতিশীল করবার উদ্দেশ্যে ২০০৮ সাল থেকে পাঁচটি বিভাগে ‘তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার’ প্রদান করে আসছে। এ পর্যন্ত ৩৯ জন কবি ও লেখক এ পুরস্কার অর্জন করেছেন।

‘কালি ও কলম তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার-২০১৮’ পেয়েছেন চারজন নবীন সাহিত্যিক। ২০১৭ সালের জুলাই থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত প্রকাশিত গ্রন্থসমূহ এ প্রতিযোগিতায় গ্রহণযোগ্য হয়েছে। কথাসাহিত্য বিভাগে এবার দুজন পুরস্কার অর্জন করেছেন। তাঁরা হলেন ‘যূথচারী আঁধারের গল্প’ গ্রন্থের জন্য নাহিদা নাহিদ ও ‘তিস্তা’ গ্রন্থের জন্য হারুন পাশা। প্রবন্ধ গবেষণা ও নাটক বিভাগে ‘হুমায়ূন আহমেদের চলচ্চিত্র : চিরায়ত রসবোধ’ গ্রন্থের জন্য শাহাদৎ রুমন এবং মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক গবেষণা ও প্রবন্ধ বিভাগে ‘একাত্তরের রমজান : গণহত্যা ও নির্যাতন’ গ্রন্থের জন্য আরাফাত তানিম পুরস্কার অর্জন করেছেন। শিশু-কিশোর সাহিত্য ও কবিতা বিভাগে ২০১৮ সালে কোনো পুরস্কার দেয়া হচ্ছে না।

২৯ জানুয়ারি, মঙ্গলবার, বিকেল ৫.৩০টায় জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বিজয়ীদের পুরস্কার প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কালি ও কলমের সম্পাদকম-লীর সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। সম্মানীয় অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট কবি ও গবেষক অধ্যাপক কায়সার হক এবং বিশেষ অতিথি বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক ও কবি আনিসুল হক।

আনিসুল হক বলেন, ‘তরুণ লেখক ও প্রবীণ লেখক দুইজনেরই বেদনা অভিন্ন। প্রবীণ লেখক নতুন সৃষ্টি করতে গিয়ে যে যন্ত্রণা অনুভব করেন, নবীন লেখকও একই যন্ত্রণা অনুভব করেন। কালি ও কলমের পুরস্কারকে সাধুবাদ জানিয়ে তিনি আরও বলেন, শিল্প মানেই ব্যর্থ হওয়া, শিল্পী মানেই ব্যর্থতার বশংবদ’। বিজয়ী সকলকে অভিনন্দন জানিয়ে অধ্যাপক কায়সার হক বলেন, ‘পুরস্কারপ্রাপ্তরা কেউই তরুণ নয়, পরিপক্ব। তিনি বলেন আধুনিক কালে কবি সাহিত্যিক ও পাঠকের মধ্যে দূরত্ব কমাতে সাহিত্য পুরস্কার দেয়া হয়ে থাকে যা প্রশংসনীয়’। পুরস্কার গ্রহণের পর বিজয়ীরা তাঁদের অনুভূতি ব্যক্ত করেন। তাঁরা বলেন এ পুরস্কার তাঁদের কাজের স্বীকৃতি।

এছাড়া পুরস্কৃতদের অভিনন্দন জ্ঞাপন করেন কালি ও কলমের প্রকাশক আবুল খায়ের। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন কালি ও কলম সম্পাদকম-লীর সদস্য লুভা নাহিদ চৌধুরী ও অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন কালি ও কলম সম্পাদক আবুল হাসনাত।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে প-িত তেজেন্দ্র নারায়ণ মজুমদারের সরোদবাদনের সঙ্গে হাসান আরিফের কবিতা আবৃত্তির যুগলবন্দি পরিবেশিত হয়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: