চড়াইভাতি

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী শীতকালে দু-দুটো দিন ছুটি পাওয়া যায়। পঁচিশে ডিসেম্বরের বড়দিন আর পয়লা জানুয়ারি। তারই মধ্যে ওরা একদিন দল বেঁধে এই অজ পাড়াগাঁয়ে পিকনিক করতে এসেছিল। ওরা মানে মাইল পঁচিশেক […]

Read more
একা পাখি

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী   জামরুল গাছের পত্রপুঞ্জের আড়ালে ছুঁচোলো ঠোঁটের সেই ছোট্ট পাখিটিকে আমি একবার দেখেছি আজও, শুনতেও পেয়েছি তার ডাক : চিড়িক, চিড়িক। ওটি যে টুনটুনি পাখি, তা-ই বা কে […]

Read more
এই গাড়ি, ওই গাড়ি

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী   বাড়ির অদূরে নদী, নদীর উপরে ব্রিজ, ব্রিজের উপরে ঝমাঝম শব্দ তুলে এতক্ষণে যার নদীটিকে পেরিয়ে যাবার কথা ছিল, সেই যাত্রীতে-বোঝাই প্যাসেঞ্জার-গাড়ি আজকে এখনো এ-পাড়ে ঠায় দাঁড়িয়ে আছে। […]

Read more
সন্দেহ

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী   সামনে যে হাইরাইজ দেখছি, তার পাঁচতলার ফ্ল্যাটে কারা থাকে? তোমার আমার মতো কোনো গেরস্তেরই পরিবার? যদি তা-ই হয়, জেলখানার মতো তবে ওর জানলাগুলো সারাদিন বন্ধ থাকে কেন? […]

Read more
কুবো

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী একটা পাখি ডেকে যাচ্ছে ভরদুপুরে আজ অদূরে কোথাও, অবিরাম। আর সে যতই ডাকে, ততই আমার চেতনায় আবছা হয়ে আসতে থাকে ট্রাম, বাস, জগঝম্প আর সাততলা-আটতলা হাইরাইজ বিলডিং নিয়ে […]

Read more
কাছের মানুষ : তারাশঙ্কর

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী ১৯৪৫ সালের অগস্ট মাসে দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের অবসান হয়। তার ঠিক দুবছর বাদে, ১৯৪৭ সালের অগস্ট মাসে, দ্বিখণ্ডিত হয় একটি আস্ত দেশ এবং জন্মলাভ করে দুটি পৃথক স্বাধীন ভূখণ্ড […]

Read more