তিন পা দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে

         বেলা হলো অনেক বেলা

এখন আমি গানের মাঝে

         হেঁটে যাবো গভীর সাঁঝে

কিন্তু আমার তিনটি পা যে!

এক পা গেছে অনেক দূরে মামার বাড়ি

দ্বিতীয় পা একলা আছে দাঁড়িয়ে আছে

           সকাল থেকে;

তৃতীয় পা দ্বন্দ্বমুখর হাঁটতে হাঁটতে

           যুদ্ধে গেছে।

পা হারিয়ে এখন আমি কোথায় যাবো

          কোন ভুবনে?

পা খুঁড়িয়ে বুক বাড়িয়ে

        হাঁটতে থাকি সন্ধেবেলা

মাথার ওপর সন্ধ্যাতারা কাঁপছে এখন;

মনে হলো গাঁয়ের পথে হাঁটছি আমি

        সাঁঝের বেলা।

কিন্তু আমার তিনটি পা যে

তিন দিকে যায়

অতীত স্মৃতি হাতড়ে বেড়ায়।

হঠাৎ দেখি মহাজনের

        নিঠুর থাবা চলার পথে –

স্বপ্ন আশা ভালোবাসা

        যা আছে তাই দিতে হবে।

হাতটি ধরি মহাজনের

        করুণসুরে কথা বলি;

বলি আমার বেলা হলো অনেক বেলা

এখন আমি বাড়ি যাবো।

        এই জীবনে পারের কড়ি

        যা আছে ভাই সবই দিলাম

এখন আমি বাড়ি যাবো!

কিন্তু আমি কোথায় যাবো –

        তিনটি পা যে তিন দিকে যায়

        ধূলির ঝড়ে হেঁটে বেড়ায়।

এক পা গেছে অনেক দূরে মামার বাড়ি

দ্বিতীয় পা একলা আছে দাঁড়িয়ে আছে

             সকাল থেকে;

তৃতীয় পা দ্বন্দ্বমুখর হাঁটতে হাঁটতে

              যুদ্ধে গেছে।

Leave a Reply