বীরেন সোমের সঙ্গে এদেশের নিসর্গ, নীলিমা আর জনজীবনের বোঝাপড়া সেই শৈশবকাল থেকে। দেশের মাটি ও মানুষ, নিসর্গের অপরূপ বর্ণবিভা আর স্বপ্ন ও বাস্তবের রেখায়নে তিনি নির্মাণ করেছেন নিজস্ব শিল্পভুবন। নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার মধ্য দিয়ে চিত্রকলার বিভিন্ন মাধ্যমে তিনি দৃপ্ত পদচ্ছাপ রেখে চলেছেন। তাঁর জলরঙে প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে নিসর্গের অনন্য রূপ ও মায়া।

আজন্ম সংগ্রামী এই চিত্রশিল্পীর অহংকার বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধকালে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের ডাইরেক্টরেট অব প্রেস পাবলিসিটি, ইনফরমেশন অ্যান্ড ব্রডকাস্টিং ডিপার্টমেন্টের সর্বকনিষ্ঠ সদস্য ছিলেন তিনি।

তিনি যুক্ত ছিলেন ষাটের দশকের উত্তাল সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের এগারো দফা আন্দোলন ও দেশের মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য বঙ্গবন্ধু-ঘোষিত ছয় দফার সংগ্রামে। সে-সময় আন্দোলনের সমর্থনে দেয়ালে দেয়ালে অসংখ্য সেøাগান-পোস্টার-ব্যানার লিখেছেন, ছবি এঁকেছেন।

দেশ-বিদেশে বহু একক ও যৌথ প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করেছেন তিনি। এদেশের মুক্তিযুদ্ধে শিল্পীসমাজের ভূমিকা ও প্রাপ্তি নিয়ে লিখেছেন গ্রন্থ।

১৯৬৯ সালে ঢাকার চারু ও কারুকলা কলেজ থেকে ব্যাচেলর অব ফাইন আর্টস ডিগ্রি সম্পন্ন করেন তিনি।

তাঁর জন্ম জামালপুর জেলার আমলাপাড়া গ্রামে ১৯৪৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর।

প্রচ্ছদে ব্যবহৃত চিত্রকর্মটি ১৯৭১ সালে তেলরঙে আঁকা।

সংগ্রাহক মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর।

Leave a Reply