পিকাসোর জগৎ : দৃষ্টের বয়ান অদৃষ্টের বসন

লেখক: হাসান হাবিব

গুহাবাসীরা এঁকেছিল শরীর
দেবতারা খুঁজল পাথর …

কোনো অভিব্যক্তির শৈল্পিক সৌন্দর্যকে শিল্প বলা যায়। শৈল্পিক সৌন্দর্য উপস্থাপনে শিল্পী যেভাবে অন্তরের মূর্ছনায় কায়া-কান্তময় করে তুলতে পারেন – তাঁর শিল্পপ্রয়াসের অনুভূতি ও অনুতৃপ্তি ততটুকুই সসীম ও পরিব্যাপ্ত হয়ে উঠবে। আসলে উপস্থাপন নির্ভর করে শিল্পীর চৈতন্যবোধ, যাপিত জগৎ ও শিল্পকৌশলের বিনির্মাণ-সমগ্রতার ওপর। এ-কারণে অনেকে শিল্পকে জীবন ও জগতের প্রতিরূপ বলতে চেয়েছেন। তবে ললিতকলা বা চারুশিল্পের ভাষায় শিল্প হলো সৃজন বা সৃষ্টিশীল। সংগত কারণে বলতে হবে, জীবন ও জগৎ হলো শুধু শিল্পীর অনুপ্রেরণা। শিল্পী জীবন ও জগৎকে আঁকেন এবং তাঁর ভাষায় থাকে একটি বিশেষ অনুরণন ও অভিব্যক্তির মূর্ছনা। জগৎ যেভাবে আছে, যেভাবে থাকে তার সৌন্দর্যে মানুষ পরাভূত ও অমলিন; কিন্তু মানুষ তার সৃষ্টিদাগ ও সৃষ্টিকে নিয়ে গেছে এক যুগ থেকে অন্য যুগে, রহস্য ও পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে। তাই দেবতা নয়, মানুষকে খুঁজে পাওয়া যায় তার শিল্পে তার পরিবর্তনে।
মানুষ শরীরী চৈতন্যে যৌবন, উর্বরাশক্তি, প্রেম ও আদিমতায় যেমন উন্মত্ত হতে পারে, তেমনি সেই শরীরী চৈতন্যই আবার বিষাদ, বিমর্ষতা, যন্ত্রণা, হতাশা, বিপর্যয় ও ধ্বংসের বিচিত্র প্রণোদনা সৃষ্টি করে। আবার মানুষ যে শুধু সব পরাজয়কে প্রত্যাখ্যান করে যায় তাই নয়, বরং সেই বিজয়ীকে চ্যালেঞ্জ করে আবার বিজয় ছিনিয়েও আনা সম্ভব। চিত্রশিল্প এসব রূপকল্প সভ্য মানুষের জন্য অমরতার বার্তা বহন করে আনতে পারে। সেটি প্রমাণ করেছেন কিউবিজমের গুরুখ্যাত পাবলো পিকাসো। পাবলো পিকাসো শিল্পকর্ম দিয়ে শুধু তাঁর সময়কেই অতিক্রম করেননি – তিনি তাঁর সময়কে ছেড়ে আজ অবধি সারাবিশ্বে যেমন অমর হয়ে আছেন, তেমনি তাঁর শিল্পকর্ম সর্বাধিক সম্মানের সঙ্গে আলোচিত হয়ে আসছে।
পাবলো রুইজ ই পিকাসো ১৮৮১ সালের ২৫ অক্টোবর স্পেনের মালাগা শহরে জন্মগ্রহণ করেন। পিকাসোর বাবার নাম হোসে রুইজ ব্লাসকো এবং মায়ের নাম মারিয়া পিকাসো লোপেজ। পাবলো মায়ের নামাঙ্কিত ‘পিকাসো’কে সারাবিশ্বে আলোর মূর্ছনায় ছড়িয়ে দিয়েছেন। পাবলো পিকাসো মাত্র দশ বছর বয়সে শিল্পকর্মের জন্য খ্যাতি অর্জন করেন! ওই বয়সেই স্প্যানিশ ফ্রান্সিসকো ডি জোয়ারবেরন, ফ্রান্সিসকো গয়া, জকুইন সঁরল্লা, জোয়ান গ্রিস, জোয়ান মিরো, সালভাদর দালির মতো খ্যাতিমান শিল্পীর নামের পাশে তাঁর নাম স্থান করে নেয় এবং সুনাম অর্জন করে। তাঁর মতো এত অল্প বয়সে সে-সময় ইউরোপে শিল্পকর্মের জন্য বিখ্যাত হওয়ার দৃষ্টান্ত অতিনগণ্য। মাত্র ১৬ বছর বয়সে বার্সেলোনা শহরে তাঁর চিত্রকর্ম প্রদর্শিত হয়। তবে পাবলো পিকাসোর চিত্রকর্ম শুরু থেকে মধ্যযুগীয় চার্চের চিন্তাজগৎ ও ধর্মানুরাগের বাইরে বেশ ভালো করেই মুক্তচিন্তার আবহে প্রস্ফুটিত ও সম্ভারিত হয়। তাঁর চিত্রকর্ম গির্জা-অনুরাগ ও দেবদেবীর সদৃশমণ্ডিত পিউরিটান কল্পজগৎকে অতিক্রম করে মানবতাবাদ বা humanism-এর দৃকপাত অর্জনে সমর্থ হয়। প্রসঙ্গক্রমে এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন, ইউরোপে মধ্যযুগীয় চিন্তাচেতনা থেকে বেরিয়ে আসার আন্দোলন শুরু হয় মূলত ষোড়শ শতাব্দীতে। এ-সময় থেকে মানুষ তার ভাবনায় গেঁথে ফেলে – ‘প্রতিভা কোনো দৈবলব্ধ দান নয়।’ এই পরিবর্তনকে ইউরোপীয় রেনেসাঁস বলা হয়। ইউরোপীয় এই রেনেসাঁসে Sir Thomas More-এর ‘Utopia’ এবং Bacon-এর ‘Novum Organum’-এর প্রভাবের কথা উল্লেখ করা যায়। ইউরোপীয় রেনেসাঁসের আলোড়ন মানুষের মুক্তবুদ্ধিবৃত্তির বিকাশ ও পরিবর্তনের সূচনা করে। এ পরিবর্তন মানুষের জীবনযাত্রার সঙ্গে সম্পর্কিত অর্থনীতি, শিল্প, সাহিত্য, সাংস্কৃতিক সব পরিমণ্ডলে প্রবাহিত ও ব্যাপৃত হতে থাকে। এ কারণে বলা যায়, রেনেসাঁস সূচনার (১৫১৬-৭৮) প্রায় সাড়ে তিনশো বছর পর চারু ও কারুকলা শিল্পীর ঘরে (পিকাসোর বাবা ছিলেন মালাগার চারু ও কারুকলা মহাবিদ্যালয়ের চিত্রাংকনের শিক্ষক এবং স্থানীয় জাদুঘরের কিউরেটর) জন্ম নেওয়া এক অকালপক্ব ছবি আঁকিয়ে একসময় ‘lineament of satisfied desire’-এ রূপ নেবে, সেটিই স্বাভাবিক। আমরা জানি, অভাব্যকে শিল্পী যেমন তাঁর তুলির আঁচড়ে রঙিনরঞ্জনে কাঙ্ক্ষিত করে তুলতে পারেন, তেমনি ভাব্যকে যুক্তিগ্রাহ্যের বাইরে টেনে তাকে রূপান্তর বা ‘convulsive energy’-তে ব্যক্ত করার শক্তি শিল্পীকেই অর্জন করতে হয়। পাবলো পিকাসো সেই শক্তি অর্জন করেছিলেন তাঁর শিল্পকর্মের বিবিধ ভেরিয়েশনের মধ্য দিয়ে। আমরা এখন পিকাসোর শিল্পকর্ম নিয়ে আলোচনা করব।
আগেই উল্লেখ করা হয়েছে, ষোড়শ শতাব্দীতে শুরু হওয়া রেনেসাঁস আন্দোলনের ঢেউ পুরো ইউরোপের শিল্প, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক বোধে আমূল পরিবর্তন এনে দেয়। এ সময় বিজ্ঞানের অভূতপূর্ব অগ্রগতি সাধিত হয়। বিজ্ঞানের অগ্রগতিতে মানুষ গ্রামোফোন, টেলিফোন, বেতার, চলচ্চিত্র, বাইসাইকেল, মোটরগাড়ি, অ্যারোপ্লেন ইত্যাদি লাভ করে। অন্যদিকে সমাজতন্ত্র ও মানবতাবাদের আন্দোলন দানা বেঁধে ওঠে। মানুষের রাজনৈতিক চিন্তায় পরিবর্তন সাধিত হয়। পাবলো পিকাসো ছিলেন মূলত একজন সচেতন ও পরিবর্তিত সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে থাকা পরিবারের সন্তান। তাঁর শিল্পকর্মের আভিজাত্যের অভিব্যক্তিতে খুব অল্প সময়ে ইমপ্রেশনিজম ও এক্সপ্রেশনিজমের কালোত্তীর্ণ কৌশলগুলো সহজে ধরা দেয়। তিনি শিল্পকর্মের চিন্তাধারায় নিজের অভিব্যক্তিকে চলমান ব্যঞ্জনার সঙ্গে চ্যালেঞ্জ করে ‘চিত্রকর্মের নিজস্ব জীবন’ প্রতিষ্ঠা করতে সমর্থ হয়েছিলেন। ১৯০৪ সালে স্পেনের মালাগা ছেড়ে প্যারিসে আগমন ছিল তাঁর জীবনে শিল্পজগতের
গৌরব বহনের মাইলফলক। এখানে বলে রাখা ভালো, তিনি শিল্প-সাহিত্যের ‘মিউজিয়াম’খ্যাত প্যারিসে স্থায়ী হওয়ার আগেই ইমপ্রেশনিস্ট পদ্ধতি আয়ত্ত করেন এবং বিখ্যাত তুলুস লুৎরেকের শিল্পভঙ্গির সঙ্গে এক্সপ্রেশনিস্ট শিল্পভঙ্গির মিশ্রণ ঘটাতে সমর্থ হন। তিনি শিল্পভঙ্গি ও ইল্যুশনের মাত্রায় ১৯০৭ সালে কিউবিজমের উদ্ভাবন ঘটান। পিকাসো কঙ্গো ও আইভরি কোস্টের নিগ্রোদের মুখোশ, হিংস্রতা, বীভৎসতা, আদিমতা ও বন্যতায় কিউবিজমের ব্যবহারে ‘barbaric sense’-এর ধারণায় এক নতুন মাত্রা প্রতিষ্ঠা করেন। আদিমতা ও বন্যতা মানবেতিহাসের পরাবাস্তবতাকে প্রমাণ করে। এ-আদিমতার আকর্ষণকে শিল্পী যেমন তাঁর শিল্পসৌকর্য-সৌষ্ঠবের আঁচড়ে নন্দিত ও গৌরবান্বিত করেছেন, তেমনি সংগীত ও কাব্যে মূর্ছনা ও নির্মিতির বহুমাত্রিকতা আমরা লক্ষ করি। এ-আদিম সজীবতার ধ্যানে মানুষ বিপর্যস্ত ও কাঙ্ক্ষার অনলে যন্ত্রণাদগ্ধ হয়েছে আবার পুলকিত হয়েছে – তার বর্ণাঢ্যতা আমরা দেখতে পাই টি.এস এলিয়টের কাব্যে ও রুশোর শিল্পকর্মে। তবে শিল্পবিন্যাসে আদিমতার এক্সপ্রেশনে যে-সত্তার উপস্থিতি শিল্পরসিক ও দর্শক-বীক্ষক উপলব্ধি করেন, তার পার্থক্যটি দৃষ্টির বৈভবের মধ্য দিয়ে সংঘটিত হয়। সে-কারণে এক্সপ্রেশনের বৈশিষ্ট্যে ‘ভার্টিক্যালে’র একটা প্রশ্ন থাকে। পিকাসো বন্যজীবনে আদিমতার নিরীক্ষায় ঐতিহাসিক সংগতশক্তির আশ্রয় নিয়েছিলেন, স্থৈর্যহীন রং ও রেখার প্রাবল্য এড়িয়ে। ফলে তাঁর চিত্রের ক্যানভাস একটি সৌষম্য ও সিনথেসিস বার্তা এনে দেয়। আবার তাঁর চিত্রে আদিমতার ভয়ংকর রূপের বিবেচনা আগ্রহ ও অপ্রয়োজনীয় প্রমাণ হয়ে পড়ে। ফলে আদিমতা নন্দনতত্ত্বের ঐশ্বর্য অর্জন করে ফভবাদকে (Fauvism) অতিক্রম করে। আর এখানেই মাতিস থেকে পিকাসো ভিন্ন।
একসময় ইউরোপে রেনেসাঁস ও রেনেসাঁসের আলোড়নে শিল্পকর্মে বিশেষ দুটি ধারার প্রভাব লক্ষ করা যায়। এদের একটি রেনেসাঁস এবং অন্যটি ম্যানারিস্ট। প্রথম পক্ষটিতে পরিবর্তন ও ধর্মের স্তুতি ছিল এবং ম্যানারিস্ট শিল্পীরা ‘ইশারা-ইঙ্গিতের মধ্য দিয়ে’ দ্বিধা প্রকাশ করার চেষ্টা করেছেন। ম্যানারিস্টে ‘ঈশ্বরের সঙ্গে বিচ্ছেদ’ ও বাস্তবতার প্রতিচ্ছবি লক্ষ করা যায়। তবে দুটি পক্ষেই বস্তুবাদ ও যুক্তিবাদের মধ্য দিয়ে অধ্যাত্মবাদকে এড়িয়ে চলার ‘অন্বেষণ’ ছিল। আমরা এখানে রেনেসাঁসভুক্ত লিওনার্দো দা ভিঞ্চির ‘দি লাস্ট সাপারে’র কথা উল্লেখ করতে পারি। ‘দি লাস্ট সাপার’ লিওনার্দোর এক অনবদ্য সৃষ্টি, যা অভূতপূর্ব নাটকীয়তায় পূর্ণ। এটি রেনেসাঁস যুগের বিজ্ঞান ও শিল্পকৌশলের পরমতম মৈত্রীবন্ধন। লিওনার্দো একাধারে ছিলেন চিত্রশিল্পী, স্থপতি, ভাস্কর, সংগীতজ্ঞ, নাট্যকার এবং মানবতাবাদী। এসব গুণের অধিকারী লিওনার্দের মধ্যে ছিল রেনেসাঁসের উচ্চতর বৈশিষ্ট্য ও কালোত্তীর্ণের অপরিহার্য প্যানোরামা। কিন্তু পিকাসোর চিন্তা ও সৃষ্টি ‘নাটকীয়তা-বর্জিত’ এবং বিজ্ঞান, মানুষ, মানবতা ও ‘গির্জার নিষ্ক্রমণ-পথ’ ধরে – যেখানে ঈশ্বর ও মানুষ, বিদ্রোহী ও বিপ্লবী এক নয়, বরং অপ্রতিবিধেয় বৈরিতার মিলনসূত্রে গ্রথিত। আমরা পিকাসোর কিউবিজম চিত্রের কম্পোজিশনের সঙ্গে সুলতানের শিল্পকর্মের কথা চিন্তা করতে পারি। পিকাসোর আদিমতা ও বন্যতার ঐতিহাসিক ‘বিপর্যস্ততা ও অ্যাপোলিনিয়র’ যেমন মানুষের শৌর্য, ঐশ্বর্য ও গৌরব বহন করে, তেমনি সুলতানের ছবি বাংলার আবহমান কিষান-কিষানির পেশিবহুল দেহ হাজার বছরের বৈরী ও প্রতিকূলতায় টিকে থাকার মনোবলকে প্রকাশ করে। দুটি উপস্থাপনায় রয়েছে এক অসাধারণ ‘সিমালট্যানিটি’।
কিউবিজমে ‘রেনেসাঁস যুগের বিধিবদ্ধ নিয়মতান্ত্রিকতা এবং পরিপ্রেক্ষিতকে অগ্রাহ্য করে বস্তুর গঠনগত নির্মিতি (structural approach) শিল্পীদের অন্বিষ্ট হয়।’ আবার পিকাসোর কিউবিজমে প্রকৃতির বিস্তৃত পটভূমিতে দ্রষ্টব্যের বা বস্তুর শরীরী সত্তার ওপর গুরুত্ব স্থাপন করার ফলে একই সঙ্গে শিল্পকর্মটির বুদ্ধি, যুক্তি এবং জ্ঞানের পরিশীলিত ও অভিনব ‘পারসিভিটি’ প্রকাশ পায়। রেনেসাঁসের যুগ অতিক্রমণের এ-চিত্রায়ন ভঙ্গিটি পিকাসোর বৈপ্লবিক দৃঢ়তাকে প্রমাণ ও পরিশ্রুত করে। এ প্রসঙ্গে আমরা যদি পিকাসোর ‘গোয়ের্নিকা’র কথা বলি, তাহলে এ-চিত্রটি শুধু যুদ্ধের অমানবীয়তার বিরুদ্ধে সমন্বিত ঘৃণা, ক্ষোভ, ক্ষুব্ধ, বিদ্রোহ ও প্রতিবাদকেই তুলে ধরে না, বরং মানুষের বর্বরতম ধ্বংসলীলার বিরুদ্ধে একটি সর্বকালীন বিপ্লবীয় নিশানা ও প্রবাহনকে জাগ্রত করে। গোয়ের্নিকা শিল্পকলার মধ্যযুগীয় গির্জা সিসটিন মিমেসিস ও রেনেসাঁসের ‘পরিপ্রেক্ষিত নাটকীয়তা’ ভাঙার একটি নবনির্মিতির ‘কনটেম্পরার’। গোয়ের্নিকার শক্তি মানবতার এমন এক বিবর্তন, যা হাজার বছরের শিল্পকীর্তির ‘প্রিমি লুমি’কে অতিক্রমণের বিস্ময়কর প্রমাণ বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরে। এ-শিল্পকর্মটি যুদ্ধের বিরুদ্ধে একটি সমন্বিত প্রতিবাদ, বিরুদ্ধতা ও বিক্ষোভের অধিধ্যান ও প্রতিমূর্তিকে প্রকাশ করে। আমরা এখন গোয়ের্নিকার সৃষ্টি, নির্মাণ ও প্রেক্ষাপট নিয়ে একটু আলোচনা করব।
সমাজে যুগে যুগে ক্ষীণস্বার্থে মানুষ সভ্যতা ও মানবতার ওপর যুদ্ধ, নৈরাজ্য, বর্বরতা, অশান্তি, সংকট ইত্যাদি চাপিয়ে দিয়েছে। সব যুগেই এসবের বিরুদ্ধে কবি-সাহিত্যিক-শিল্পীরা তাঁদের কলম ও তুলির শাণিত শক্তিকে হুংকার ও বিপ্লবের প্রতিরূপে রূপান্তর করেছেন। আর গোয়ের্নিকার পিকাসো ও পিকাসোর গোয়ের্নিকায় রয়েছে যুদ্ধ ও অশান্তির বিরুদ্ধে ‘বলীবর্দের হুংকার’ ও অনুস্মারক। গোয়ের্নিকা স্পেনের একটি শহর। ১৯৩৭ সালে স্পেনে গৃহযুদ্ধ চলছিল। ২৬ এপ্রিল জার্মানির নাৎসির সহযোগিতা ও গৃহযুদ্ধ গোয়ের্নিকা শহরটিকে ধ্বংস করে দেয়। নির্মম বোমার আক্রমণে শত শত মানুষ ও প্রাণী নিহত হয়। পিকাসো এ-যুদ্ধের পৈশাচিকতা ও নৃশংসতায় ক্ষুব্ধ ও বেদনার্ত হয়ে সেটি গোয়ের্নিকায় রূপ দিতে অনুপ্রাণিত হন। গোয়ের্নিকার ধ্বংসস্তূপ থেকে দুঃখ ও যন্ত্রণার বোহেমিয়ান, কালো ও ধূসর রঙে উঠে আসে। পিকাসোর ১৩৭.৪ বাই ৩০৫.৫ ইঞ্চি আকারের এ-চিত্রকর্মটি বিশ্ববাসীর কাছে শুধু যুদ্ধ ও ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদই নয় – চিত্রকর্মটি যুগে যুগে মানুষকে ‘যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই’ – বাক্যটিকে স্মরণ করিয়ে দেয়।
তবে পিকাসোর বিশ্বখ্যাত ‘গোয়ের্নিকা’ দিয়ে তাঁর চিন্তাচেতনার পরিব্যাপ্তি ও সমগ্রতাকে নির্ণয় করা সম্ভব নয়। একটি ধ্বংস ও প্রতিবাদচিত্র তাঁকে বিশ্বব্যাপী পরিচিতি এনে দিলেও তাঁর ‘লেই দেমোয়াজেল দে’তিনিয়োঁ’, ‘দ্য উইপিং উইম্যান’, ‘দ্য ব্লু রুম’, ‘ওল্ড গিটারিস্ট’, ‘ল্য মুঁল্যা দ্য লা গালেৎ’, ‘টু নুডস’, ‘সেল্ফ-পোর্ট্রেট’, ‘মডেল অ্যান্ড ফিশবৌল’, ‘থ্রি মিউজিশিয়ানস্’ ও ‘উইমেন অব আলজিয়ার্স’ – নামোল্লিখিত শিল্পকর্মগুলো তাঁকে চিরস্মরণীয় করে রাখবে।

কৃতজ্ঞতা :
১. সাহিত্য সন্দর্শন, শ্রীশচন্দ্র দাশ।
২. ইংরেজি সাহিত্যের ইতিহাস, ড. সৈয়দ সাজ্জাদ হোসাইন।
৩. শিল্পবোধ ও শিল্পচৈতন্য, সৈয়দ আলী আহসান।
৪. য়োরোপীয় সাহিত্যের বিবিধ প্রসঙ্গ, জাহাঙ্গীর তারেক।
৫. বিশ্বসাহিত্য, মোবাশ্বের আলী।
৬. জীবনানন্দ ও তাঁর কাল, হরিশংকর জলদাস।
৭. ভারতশিল্পের উপনিবেশায়ন ও সুলতানের বিউপনিবেশায়ন ভাবনা, সৈয়দ নিজার।
৮. এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা।

Leave a Reply