আশ্চর্যবিকেল

কয়েকটি মুহূর্তমাত্র, যেন একপলক দৃষ্টির লেনদেন,

তারপর থেমে গেছে সব কথা বুকের ভেতরে জমা যত আলোড়ন,

কিছুই নেয়নি সাথে শুধু নিয়ে গেল এক দারুণ বিস্ময়!

রংধনু উঠেছিল বৃষ্টিভেজা আকাশে রৌদ্রের আলো মøান।

এই দৃশ্য সত্য শুধু দুজনের কাছে; কোথাও সাক্ষ্য নেই কেউ

পেছনে জানালা খোলা সেই জানালায় আকাশের রংধনু আজও তো তেমনই

দৃশ্যমান! একটি শালিক এসে বসেছে সজনে ডালে সেই বিকেলের মতো একা।

কলাপাতা-রং শাড়ি হাওয়ায় উড়ছে দূরে কোথাও নির্জন বারান্দায়

সেইখানে এইসব চিত্রময় দৃশ্যাবলি সত্য চিরদিন।

একটি বিকেল আর পলকের চোখাচোখি নির্বাক বিস্ময় কী যে মুগ্ধতা জড়ানো!

যেন হীরা-জহরতে গড়া অলংকারও সেই দৃষ্টির লাবণ্যে মøান!

বিকেল গড়িয়ে গেছে গোধূলির রক্তিমাভা আকাশে ছড়িয়ে

গড়িয়ে গড়িয়ে ধীরে কালোপাড় শাড়ি তার আঁচল উড়িয়ে

উত্তরের হাওয়া ডেকে নিয়ে এলো শীত আর রাত্রি অন্ধকার

সেই রাত্রি কী বিস্ময়ে বিনিদ্র কাটিয়ে দিলে মুগ্ধতার ঘোরে!

অতিথি পাখির মতো যে এসে শীতের শেষে উড়ে চলে যায় –

তার কথা ভেবে এই মুগ্ধবিহ্বলতা তোর হায়রে হৃদয় বেহিসেবি!

সকাল-দুপুর গিয়ে এমনই বিকেল কত রাত্রিতে বিলীন

কোন দূর দেশে সেই বিকেল কবেই চলে গেছে সময়ের হাত ধরে!

সব গল্প, সব স্বপ্নদিনের রৌদ্রের সঙ্গে রাত্রিতে হারায় 

এ সত্য জেনেও তুমি একটি নতুন দিনবরণ না করে আশ্চর্য বিকেলে পড়ে আছো!