চাকার উপহাস

গুইসাপের পেট চিড়ে যে-শব্দ পালিয়ে গেছে তার পিছু পিছু এতদূর এসেছি, এসে দেখি ঝরা শিউলির গন্ধ চুরি করে আকাশে ভেসেছে নির্জন-মেঘ, শতাব্দীর কার্নিশ চুঁইয়ে কয়েক ফোঁটা জল গড়িয়ে পড়ছে আমার […]

Read more
বার্তা

ইন্দ্রিয় সজাগ রেখো – কেউ আসছে মাটির গন্ধ তার সারাগায়ে রক্তের গন্ধ তার আকাশে বাতাসে নখ, মুখ, কান অরণ্যে ঢাকা হিমালয়ের মতো বিশাল হৃদয় নিয়ে – কেউ আসছে খুব গোপনে […]

Read more
বিদায়ী কঙ্কাল

শামীম হোসেন হৃদপুরের মাস্টারমশাই খুলেছেন এক বিদ্যালয়। কেঁচোকে লিখতে দিয়েছেন ঘাসের রচনা। গাছগুলো চকখড়ি, আকাশকে সেস্নট করে এঁকে বোঝান বিন্দুধারণা।  অন্ধশেয়াল হয়ে শেখান অংকের দ্যোতনা। ছাত্ররা সব জি জি করে। […]

Read more
নদীপাঠ

শামীম হোসেন   আমাদের আড্ডা হয় প্রতিদিন। অমলিন …   ছোট ছোট ঢেউ পৌরাণিক ডানা মেলে – শিখিয়ে দেয় কীভাবে হাতের আঙুল ধরে পাড়ি দিতে হয় জলের পথ। কেননা আমরা […]

Read more
কৃষ্ণের জ্বর হলে রাধা পোড়ে শীতের আগুনে

শামীম হোসেন লৌকিক রাধা এসে ঘুরে গেছেন পার্বতীপুর! সে এক প্রাচীন বট – ঝুরি দিয়ে বিছিয়েছে পথ চোখবন্ধ অন্ধকারে ধাওয়া করে মোহনীয় সুর… অসংখ্য প্রাণকণা সাপের লকলকে জিহ্বার মতো নিশ্বাসের […]

Read more
কৃষ্ণের জ্বর হলে

শামীম হোসেন লৌকিক রাধা এসে ঘুরে গেছেন পার্বতীপুর!   সে এক প্রাচীন বট – ঝুরি দিয়ে বিছিয়েছে পথ চোখবন্ধ অন্ধকারে ধাওয়া করে মোহনীয় সুর… অসংখ্য প্রাণকণা সাপের লকলকে জিহবার মতো […]

Read more
দুটি কবিতা

শামীম হোসেন   ব্যাকরণ   ভাষার অধীনে যাই – করি কার শরীর-বন্দনা!   পাতায় লুকিয়ে রেখে কাঁচুলির ঘ্রাণ ভ্রূণপিঠে হেঁটে যায় – পিঁপড়ের সারি…   অনুবাদে মিলে যায় শাড়ির দু’ভাঁজ! […]

Read more
পাথরের চোখ

শামীম হোসেন পাথরের চোখ – অশ্রু পড়ে না, দুঃখ ঝরে না গাবগাছের নিচে জালবোনা দিনে কুড়িয়ে আনি কিছু নিমপাতা রঙের মনের ময়না! পাথরের চোখ শুধু চেয়ে থাকে, পলক পড়ে না… […]

Read more